শনিবার , এপ্রিল ১৩ ২০২৪
শিরোনাম
Home / শিক্ষা-সাহিত্য / বিস্ময়কর বিশ্বে-ঃ কাকতালীয় ======= জলি দাশ। চট্টবাংলা।

বিস্ময়কর বিশ্বে-ঃ কাকতালীয় ======= জলি দাশ। চট্টবাংলা।

দুই মেরুর দুই শক্তিমান মানুষ। একজন সাহিত্যে। অন্যজন আধ্যাত্নিক বা ঐশ্বরিক। গতকাল ২মে ছিল তাঁদের জীবনের একটি বিশেষ দিন। আবার একে ঐতিহাসিক দিনও বলা যেতে পারে।
খ্রীষ্টপূর্ব ১৮৮৩ খ্রীষ্টাব্দের এই দিনটিতে মহামিলন ঘটে দুই ঠাকুরের। পরম পুরুষ শ্রীরামকৃষ্ণ আর রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। ওটাই ছিল তাঁদের জীবনে প্রথম ও শেষ দেখা।
কলকাতার শ্যামবাজারের কাছে কাশীশ্বর মিত্র’র বাড়িতে ২০তম ব্রাহ্ম উৎসবে নিমন্ত্রিত ছিলেন পরম পুরুষ শ্রীরামকৃষ্ণ। বিকেল ৫টায় রাখাল মহারাজ, শ্রীম ও অন্যান্য ভক্তদের নিয়ে তিনি উপস্থিত হন সেখানে।
একই বাড়িতে নিমন্ত্রিত হয়ে আসেন রবিন্দ্র নাথ ঠাকুরও। তখন কবির বয়স তখন মাত্র ২২ বছর। কিন্তু ইতিমধ্যে লিখে ফেলেছেন অনেক গান আর কবিতা।
শ্রীরামকৃষ্ণের অনুরোধে তরুণ কবি যে গানটি সেদিন শুনিয়েছিলেন, সেটিও ২/৩ দিন আগে লেখা। বোধ হয় এই উপলক্ষেই ঈশ্বর তাঁকে দিয়ে কালজয়ী সে গানটি রচনা করিয়েছিলেন।
কবি গাইলেন তাঁর বিখ্যাত গান “আমার মাথা নত ক’রে দাও হে তোমার চরণ ধুলার তলে / সকল অহংকার হে আমার ডুবাও চোখের জলে॥ গানটি শেষ হওয়ার পর পরম পুরুষ শ্রীরামকৃষ্ণ কবির মাথায় হাত দিয়ে আশির্বাদ করেন।
সে থেকে এখনো প্রতি বছর দিনটি মিত্তির বাড়িতে বিশেষ ভাবে পালন করা হয়।
তথ্যসূত্র ও ছবি-
মধ্যমগ্রাম আমার তোমার গ্রুপ,
পশ্চিমবঙ্গ, কলিকাতা থেকে সংগৃহীত।

এটি পড়ে দেখতে পারেন

ভালো মানুষের সংখ্যা বাড়ানোর আন্দোলন চাই

ড. মুহম্মদ মাসুম চৌধুরী ———————————— সমগ্র পৃথিবী দ্রুত উন্নতি হচ্ছে, হবে, হতেই থাকবে কিন্তু মানুষের …